মেসির পেনাল্টি ফসকিয়ে আর্জেন্টিনা-আইসল্যান্ডের ড্র

বাংলাপ্রেস ডেস্ক
১৬ জুন, ২০১৮

ক্রীড়া প্রতিবেদক: ইউরোতে সবাইকে চমকে দেওয়া আইসল্যান্ড প্রথম বিশ্বকাপে আটকে দিলো গতবারের ফাইনালিস্ট আর্জেন্টিনাকে। লিওনেল মেসির পেনাল্টি মিসের দিন আর্জেন্টাইনরা ১-১ গোলে ড্র দিয়ে শুরু করল বিশ্বকাপের ২১তম আসর। ২০১৬ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে অভিষেকেই কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল আইসল্যান্ড। বিশ্বকাপেও তাদের দারুণ পথচলা শুরু হলো ‘ফেভারিট’ আর্জেন্টিনার সঙ্গে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে। সের্হিয়ো আগুয়েরোর দারুণ গোলে এগিয়ে গেলেও এলোমেলো রক্ষণের মাশুল দিয়েছে আর্জেন্টিনা। মস্কোর স্পার্তাক স্টেডিয়ামে আইসল্যান্ডের বিপক্ষে আর্জেন্টাইনদের ‘ডি’ গ্রুপের প্রথম ম্যাচে প্রথমার্ধ শেষ হয় ১-১ গোলে। দ্বিতীয়ার্ধে আর কেউ গোলের দেখা পায়নি। অথচ মেসি পেয়েছিলেন দলকে জেতানোর সুযোগ।
আইসল্যান্ডের শক্ত রক্ষণের কারণে প্রথম কয়েক মিনিট মাঝমাঠেই বল নিয়ে ঘোরাফেরা করেছে আর্জেন্টিনা। ৫ মিনিটে বাঁ প্রান্ত থেকে মেসির ফ্রি কিকে প্রথমবার আইসল্যান্ডের বক্সে বল পায় আর্জেন্টিনা। কিন্তু কোনও অ্যাটাকার বা ডিফেন্ডারের গায়ে না লেগেই বল চলে যায় মাঠের বাইরে।
৩ মিনিট পর আবারও ফ্রি কিক থেকে খানিকটা ভড়কে দেন আইসল্যান্ডের ডিফেন্ডারদের। বেশ নিচু দিয়ে আসা বলটি হেড করতে চেয়েছিলেন তাগিয়াফিকো, কিন্তু তার ঘাড়ে লাগলে বল আর মাঠে থাকেনি।
আগুয়েরোর গোলে এগিয়ে গিয়েছিল আর্জেন্টিনাআর্জেন্টিনার অগোছালো রক্ষণের সুযোগ নিয়ে ৯ মিনিটে হানা দেয় আইসল্যান্ড। গোলের সুবর্ণ সুযোগ পায় তারা। গোল কিক থেকে আইসল্যান্ড বল পায়ে পায়। ডান প্রান্ত থেকে বিয়ার্নসন একাই গোলরক্ষককে পেলেও তার মাটি কামড়ানো শট গোলপোস্টের বেশ পাশ দিয়ে চলে যায়।
ম্যাচে গোলমুখে প্রথমবার মেসি শট নেন ১৭ মিনিটে। হান্নেস থর হ্যালডোরসন দারুণ দক্ষতায় বল পাঞ্চ করে বিপদমুক্ত করেন। দুই মিনিট পরই উল্লাসে মাতে আর্জেন্টিনা। ১৯ মিনিটে রোহোর শট বক্সে পান সের্হিয়ো আগুয়েরো। ডান পা দিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়ে বাঁ পায়ে লক্ষ্যভেদ করেন ম্যানসিটি ফরোয়ার্ড। ২১ মিনিটে আবার মেসির শট লক্ষ্যের দিকে ছুটেছিল, এবারও বাধা দেন হ্যালডোরসন।
আর্জেন্টিনা বেশিক্ষণ এগিয়ে থাকতে পারেনি। তাদের এলোমেলো ডিফেন্সের মাশুল দেয় তারা ২৩ মিনিটে। সিগুর্দসন গোলমুখের সামনে বল দেন, আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক উইলি কাবায়েরো কোনোভাবে বল ঠেকান। কিন্তু তার হাতে লেগে বল ফিরে আসে ফিনবোগাসনের পায়ে। জালে বল পাঠাতে খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি এফসি অগসবুর্গের এ স্ট্রাইকারের।
৩৩ মিনিটে বিজিয়ার শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে গেলে আর্জেন্টিনার সুযোগ নষ্ট হয়। ৪১ মিনিটে পেনাল্টির জোর আবেদন করলেও পায়নি তারা। আইসল্যান্ডের ডিবক্সে মেজার নিচু ড্রাইভ সিগুর্দসনের হাতে লেগেছিল, কিন্তু ইচ্ছাকৃত ছিল না বলে রেফারি সাড়া দেননি। শেষ মুহূর্তে একটি সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করে আইসল্যান্ড। ৪৫ মিনিটে সিগুর্দসনকে ঠেকিয়ে দেন কাবায়েরো।
আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে থাকতে দেয়নি আইসল্যান্ডদ্বিতীয়ার্ধ রক্ষণে ব্যস্ত থেকেছে আইসল্যান্ড। তাদের ডিবক্সের মধ্যে আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়রা ফিনিশিং ঠিকঠাক করতে পারেনি। তেমন করেই তাদের আটকাতে গিয়েই বিপদে পড়তে বসেছিল আইসল্যান্ড। ডিবক্সের মধ্যে মেজাকে ফাউল করেন মাগনুসন। পেনাল্টি পায় আর্জেন্টিনা। ৬৪ মিনিটে ওই কিক নেন মেসি। কিন্তু তার দুর্বল শট ডানদিকে ঝাপিয়ে পড়ে সহজে ফিরিয়ে দেন হ্যালডোরসন। এনিয়ে বিশ্বকাপে টানা দুটি পেনাল্টি নষ্ট করল আর্জেন্টিনা। ২০০২ সালে সুইডেনের বিপক্ষে অ্যারিয়েল ওরতেগার পর এবার মেসি এই ব্যর্থতার শিকার। বার্সেলোনার ফরোয়ার্ড কিছুক্ষণ পর ফ্রি কিক থেকে বল গোলবারের ওপর দিয়ে পাঠান।
৭৭ মিনিটে আবারও পেনাল্টির আবেদন করে গতবারের ফাইনালিস্টরা। পাভনকে বক্সের মধ্যে ফাউল করেছিলেন সায়েভারসন, কিন্তু রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজাননি। ৭৯ মিনিটে মেসি বক্সের মধ্যে পায়ে বল পেলেও আইসল্যান্ডের ডিফেন্ডার তাকে শট নেওয়ার আগেই দ্রুত গতিতে বল বাইরে পাঠান। ৮১ মিনিটে মেসির বাঁপায়ের বাঁকানো শট অল্পের জন্য গোলবারের পাশ দিয়ে চলে যায়।
হতাশা লুকিয়ে রাখতে পারলেন না মেসিশেষ ৬ মিনিট মেজার বদলি নেমে ম্যাচের ফল পাল্টাতে পারেননি হিগুয়েইন। ৮৮ মিনিটে মাসচেরানোকে সহজে রুখে দেন হ্যালডোরসন। শেষ বাঁশি বাজার আগে মেসির ফ্রি কিক আটকে দেয় আইসল্যান্ডের রক্ষণ দেয়াল। হতাশায় বল আকাশের দিকে পাঠিয়ে দেন মেসি। তবে তাদের হতাশায় এই সময় গ্যালারি থেকে সাহস দিয়েছেন ডিয়েগো ম্যারাডোনা।
আগামী ২১ জুন নোভগোরদে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা। পরের দিনে ভোলগোগ্রাদে আইসল্যান্ড মোকাবিলা করবে নাইজেরিয়াকে।