যুক্তরাষ্ট্রে সফরে এসে যে কথা বলে গেছেন মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল

বাংলাপ্রেস ডেস্ক
২৫ এপ্রিল, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক : দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার কৃতি সন্তান বিশিষ্ট আবাসন ব্যবসায়ী ও কেন্দ্রিয় আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধালীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম ২০১৭ সালের আগষ্টের প্রথম সপ্তাহে ব্যক্তিগত সফরে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। অ্যারিজোনার অঙ্গরাজ্যে তার ছেলের বাসা ঘুরে নিউ ইয়র্কে এসেছিলেন মাত্র দু’দিনের জন্য। ২০১৭ সালের ১১ আগষ্ট স্থানীয় পার্বতীপুর সমিতির নেতৃবৃন্দরা তাৎক্ষনিক আয়োজনে তাঁকে সংবর্ধনা প্রদান করেন।
উক্ত সভায় তিনি বলেছিলেন, অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটে থেকে ভ্যাট প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত ছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুগান্তকারী পদক্ষেপ। ব্যবসায়ীদের উপর অর্থমন্ত্রীর চাপিয়ে দেওয়া ভ্যাট প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সংশোধন করা না হলে ব্যবসায়িদেরকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হতো। ভ্যাট প্রত্যাহার করা না হলে বাজেটের সমালোচনার পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াত চক্র এটা নিয়ে আন্দোলন করার একটা সুযোগ পেত। ১১ আগষ্ট ২০১৭ সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের একটি রেস্তোরাঁয় পার্বতীপুর সমিতি আয়োজিত এক সংবর্ধনা সভায় বিশিষ্ট আবাসন ব্যবসায়ী ও কেন্দ্রিয় আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধালীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম সরকার এসব কথা বলেন।
মিচুয়াল প্রপার্টি লিমিটেড এর স্বত্তাধিকারী আমিনুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ট নেতৃত্বে বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নসহ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। উন্নয়নের এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে আগামী নির্বাচনেও আওয়ামীলীগ জয়লাভ করবে এটা নিশ্চিত করেই বলা যায়।
আমিনুল ইসলাম আরো বলেন, বাজেট ২০১৭-১৮ আগামী দুই বছরের জন্য নতুন ভ্যাট আইন স্থগিতের পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই দুই বছর আগের ১৯৯১ সালের আইনেই ভ্যাট আদায় করা হবে। আপত্তির মুখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের ব্যবসায়ীদেরকে আশার আলো দেখিয়ে বলেছেন, ‘নতুন ভ্যাট আইন নিয়ে যেহেতু কথা উঠেছে, ব্যবসায়ীরাও এই আইনে তেমন সাড়া দিচ্ছেন না, সে কারণে আমি মনে করি এই আইন আগে যেমন ছিল আগামী দুই বছরও তেমনই থাকবে।’ প্রধানমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্ত একটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যবসায়ীদের উপর চাপিয়ে দেওয়া ভ্যাট আরোপিত হলে দেশে ব্যবসা করাই দুস্কর হয়ে পরতো। তাই ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে অশেষ ধন্যবাদ জানান।
করোনা চিকিৎসা শেষে নেগেটিভ ফলাফলে পাবার পর গত শনিবার (২৪ এপ্রিল) দুপুর দেড়টার দিকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে পিত্ত থলিতে পাথরের জটিলটায় তিনি মারা যান।
প্রয়াত আমিনুল ইসলাম সরকার পার্বতীপুর পৌর চেয়ারম্যান সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল ওহাব সরকারের ছোট ভাই এবং পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও ইয়াংস্টার ক্লাবের সভাপতি আমজাদ হোসেনের মামা। তারা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম সরকারের আত্মার শান্তি কামনার দেশ বিদেশের সবার কাছ থেকে দোয়া কামনা করেছেন।

বিপি।এসএম