বোয়ালমারীতে অভিযোগের ভিত্তিতে স্কুলে শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত

বাংলাপ্রেস ডেস্ক
৩১ মার্চ, ২০২১

ফরিদপুর প্রতিনিধি : ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার রূপাপাত বামন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে
সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ স্থগিত করা হয়েছে। অবৈধ টাকার বিনিময়ে ও স্বজন
প্রীতি করে সহকারী প্রধান শিক্ষক শিলা পারভীনকে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে মর্মে কালীনগর
গ্রামের বাসিন্দা জাকির হোসেন মন্টু ফকির গত রবিবার (২৮ মার্চ) জেলা প্রশাসক বরাবর
একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

বুধবার (৩১ মার্চ) সকালে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন চলছিল। জাকির হোসেন মন্টু ফকিরের অভিযোগের ভিত্তিতে বোয়ালমারী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মারিয়া হক স্কুলে উপস্থিত হয়। পরে কমিটির সকলের উপস্থিতিতে নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শিলা পারভীন রূপাপাত বামন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মিজানুর রহমান মোল্যার স্ত্রী। এছাড়া ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. নিরুল মিয়া এবং মিজানুর রহমান মোল্যা একই দলভুক্ত। উক্ত পদে সহকারী শিক্ষিকা শিলা পারভীনকে লোক দেখানো পরীক্ষার আয়োজন করে নিয়োগ দেওয়ার অপচেষ্টা করছে। যা নিয়ে এলাকা সর্বস্থরের জনগনের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নিয়োগের জন্য মোট আবেদন করেন ১৪ জন। নিয়োগ পরীক্ষার দিন হাজির হয় ১০ জন।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শাহজাহান মোল্যা বলেন, মন্টু ফকিরের লিখিত
অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে সকলের সামনে বলেন নিয়োগ পরীক্ষার জন্য যে প্রশ্ন করা হয়েছে তা বাদ দিয়ে নতুন করে প্রশ্ন করে পরীক্ষা নেওয়া হোক। যেহেতু নিয়োগ কমিটির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পড়েছে। তার এই কথা শুনে সভাপাতি বলেন, আমি দশটা প্রশ্ন দিব। সভাপতির এ প্রস্তাবে কমিটির অন্য সদস্যরা রাজি না হওয়ার কারনে নিয়োগ স্থগিত করা হয়। তিনি আরও বলেন, ডিজির প্রতিনিধি ফরিদপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেহেনা জাহান নিয়োগ পরীক্ষার সকল প্রশ্ন করে নিয়ে আসছিলেন।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহিম বলেন, নিয়োগ পরিক্ষার আগে উপজেলা
সহকারী কমিশনার (ভূমি) মারিয়া হক স্কুলে যান। আমরা সকলেই প্রস্তাব রাখি যে প্রশ্ন করে
আনা হয়েছে ওই প্রশ্ন বাদ দিতে হবে। এবং এ্যাসিল্যান্ড স্যার বই দেখে নতুন করে প্রশ্ন
দিবেন সেই প্রশ্নে নিয়োগ পরিক্ষা হবে। এ প্রস্তাব সভাপতি না মানার কারনে নিয়োগ
স্থগিত করা হয়েছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মারিয়া হক বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়ে স্কুলে
গিয়ে নিয়োগ কিমিটিকে বলি, নিয়োগের জন্য যে প্রশ্ন করে আনা হয়েছে সে প্রশ্ন
বাদ দিয়ে উপস্থিতির উপরে নতুন করে প্রশ্ন করে নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া হোক। বিদ্যালয়ের
সভাপতি বলেন, নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নের মধ্যে আমার কিছু প্রশ্ন রাখতে হবে। তার এই
প্রস্তাবে কমিটির অন্যান্য সদস্যরা রাজি না হওয়ায় নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করেছে। যেহেতু
নিয়োগ পরীক্ষায় সভাপতির বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ রয়েছে।